ফরয নামাযঃ হাদিস-২২

1 11 2010

হযরত আবু সাঈ’দ খুদরী রদিয়াল্লহু আ’নহু (أبى سعيْدٍ الْخدْرىّ رضى الله عنْه) হইতে বর্ণিত আছে যে, তিনি রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম কে এই এরশাদ করিতে শুনিয়াছেন, পাঁচ ওয়াক্ত নামায উহার মধ্যবর্তী সময়ের জন্য কাফফারহ। (অর্থাৎ এক নামায হইতে অপর নামায পর্যন্ত যত সগীরাহ গুনাহ হয় তাহা নামাযের বরকতে মাফ হইয়া যায়।) অতঃপর রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করিলেন, যদি কোন ব্যক্তির একটি কারখানা থাকে এবং সে উহাতে কাজকর্ম করে। তাহার কারখানা ও বাড়ীর পথে পাঁচটি নহর পড়ে। সে যখন কারখানায় কাজ করে তখন তাহার শরীরে ময়লা লাগে অথবা ঘাম বাহির হয়। অতঃপর সে বাড়ী যাইয়ার পথে প্রতিটি নহরে গোসল করিতে করিতে যায়। তাহার (এই বার বার গোসল করিবার দরুন) শরীরে কোন ময়লা থাকে না। নামাযের উদাহরণও তদ্রুপ। যখনই সে কোন গুনাহ করে তখন (নামাযের মধ্যে) দুআ’ এস্তেগফার করার দ্বারা আল্লহ তায়া’লা নামাযের পূর্বে কৃত তাহার সকল গুনাহ মাফ করিয়া দেন। (বাযযার, তাবারানী, মাজমাউয যাওয়ায়েদ)

মুন্তাখাব হাদিস (জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ১৮১-১৮২


পদক্ষেপ

Information

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s




%d bloggers like this: